কিশোরগঞ্জ জেলার সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি 2024 Kishoreganj Sehri & Iftar Time

প্রিয় ধর্মপ্রাণ মুসলমান ভাই ও বোনেরা আসসালামু আলাইকুম আশা করি আপনারা সবাই অনেক ভাল আছেন। আজকে আমরা আপনাদের সামনে হাজির হয়েছি কিশোরগঞ্জ জেলার এবছরের সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি নিয়ে। আমরা ইসলামী ফাউন্ডেশন থেকে সঠিক তথ্য টি নিয়ে আপনাদের সামনে কিশোরগঞ্জ জেলার সেহরি ও ইফতারের সময় সূচির ক্যালেন্ডার টি সামনে তুলে ধরব।

যাতে করে আপনার পবিত্র রমাদানের সময় সেহেরী ও ইফতারীর সময় জানতে কোন অসুবিধা না হয়। আপনারা চাইলে আমাদের এই ক্যালেন্ডারটি কম্পিউটারের সাহায্যে প্রিন্ট আউট করে ও বাসায় লাগাই দিতে পারেন। আল্লাহ তা’আলা যেন আমাদেরকে সবাইকে পবিত্র রমজান মাসের 30 টি রোজা রাখার তৌফিক দান করেন।

কিশোরগঞ্জ জেলার সেহেরির সময়সূচি

আপনি যদি সে কিশোরগঞ্জ জেলার সেহরীর সময়সূচী বুঝে থাকেন তাহলে আমাদের ওয়েবসাইট থেকে দেখে নিতে পারেন। এবং আপনাদের সুবিধার্থে আমরা কিশোরগঞ্জ জেলার এবারে বছরের সেহরীর সময়সূচী কি নিচে উপযুক্ত করছি।

কিশোরগঞ্জ জেলার ইফতারের সময়সূচি

সারাদিন পানাহারে থাকার পর সূর্য অস্ত যাওয়া পর্যন্ত মাগরিবের আযানের সাথে সাথে বাংলাদেশের প্রত্যেকটি জেলায় ইফতারি করা হয়। তাই আপনি যদি কিশোরগঞ্জ জেলার বসবাস করে থাকেন তাহলে অবশ্যই আমাদের নিজের ইফতারি টাইম অনুযায়ী ইফতারি করে নিবেন।

কিশোরগঞ্জ জেলার ইফতারের সময়সূচি
কিশোরগঞ্জ জেলার ইফতারের সময়সূচি

রোজা ভঙ্গের কারণ সমুহ:

  • ইচ্ছাকৃত পানাহার করলে।
  • স্ত্রী সহবাস করলে ।
  • কুলি করার সময় হলকের নিচে পানি চলে গেলে (অবশ্য রোজার কথা স্মরণ না থাকলে রোজা ভাঙ্গবে না)।
  • ইচ্ছকৃত মুখভরে বমি করলে।
  • নস্য গ্রহণ করা, নাকে বা কানে ওষধ বা তৈল প্রবেশ করালে।
  • জবরদস্তি করে কেহ রোজা ভাঙ্গালে ।
  • ইনজেকশান বা স্যালাইরনর মাধ্যমে দেমাগে ওষধ পৌছালে।
  • কংকর পাথর বা ফলের বিচি গিলে ফেললে।
  • সূর্যাস্ত হয়েছে মনে করে ইফতার করার পর দেখা গেল সুর্যাস্ত হয়নি।
  • পুরা রমজান মাস রোজার নিয়ত না করলে।
  • দাঁত হতে ছোলা পরিমান খাদ্য-দ্রব্য গিলে ফেললে।
  • ধূমপান করা, ইচ্ছাকৃত লোবান বা আগরবাতি জ্বালায়ে ধোয়া গ্রহন করলে।
  • মুখ ভর্তি বমি গিলে ফেললে ।
  • রাত্রি আছে মনে করে সোবহে সাদিকের পর পানাহার করলে।
  • মুখে পান রেখে ঘুমিয়ে পড়ে সুবহে সাদিকের পর নিদ্রা হতে জাগরিত হওয়া এ অবস্থায় শুধু কাজা ওয়াজিব হবে।

রোজা শর্ত

  • নিয়ত করা
  • সব ধরনের পানাহার থেকে বিরত থাকা
  • যৌন আচরণ থেকে বিরত থাকা।

রোজা রাখার ৪ শর্ত :

  • মুসলিম হওয়া
  • বালেগ হওয়া
  • অক্ষম না হওয়া
  • ঋতুস্রাব থেকে বিরত থাকা নারী

রোজা প্রকারভেদ

  • রোজা পাঁচ প্রকার।

ফরজ রোজা: যা আবার চার প্রকার-

  • রমজান মাসের রোজা।
  • কোন কারণ বশত রমজানের রোজা ভঙ্গ হয়ে গেলে তার কাযা আদায়ে রোজা।
  • শরীয়তে স্বীকৃত কারণ ব্যতীত রমজানের রোজা ছেড়ে দিলে কাফ্ফারা হিসেবে ৬০টি রোজা রাখা।
  • রোজার মান্নত করলে তা আদায় করা।

রোজা উপকারিতা

“রোজাদারের জন্য দুটি খুশি। একটি হলো তার ইফতারের সময়, আর অপরটি হলো আল্লাহর সঙ্গে সাক্ষাতের সময়।”— (বুখারী ও মুসলিম)

অবশ্যই আমরা পবিত্র রমজান মাসে যাকাত গরিব-দুঃখীদের সাহায্য সহযোগিতা করব। এছাড়া আমাদের আশেপাশে যারা গরীব দুঃখী আছে তাদের আমরা ইফতারি ও সেহরীর ব্যবস্থা করে দেবো ইনশাল্লাহ। তোমার সাথে থাকার জন্য সবাইকে ধন্যবাদ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button